2017/04/30

আপডেইট হয়েছে :  

স্বরণিকা

সর্বশেষ বিষয়

আমাদের তরফ হতে সহযোগিতা

সন্ত্রাস বিরোধী আন্তর্জাতিক সামরিক জোটের কথা ও কাজে মিল নেই: ইরাক

১০ সেপ্টেম্বর (রেডিও তেহরান): ইরাকের পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেছেন, উগ্র তাকফিরি সন্ত্রাসী গোষ্ঠী আইএসআইএলের বিরুদ্ধে যুদ্ধ আন্তর্জাতিক রূপ নিয়েছে এবং আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে যুদ্ধে তার দেশ অগ্রণী ভূমিকা পালন করছে। পররাষ্ট্রমন্ত্রী ইব্রাহিম জাফরি বলেছেন, ৮০টির বেশি দেশ থেকে আসা সন্ত্রাসীরা ইরাক ও সিরিয়া সরকারের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করছে। তিনি আইএসআইএল বিরোধী যুদ্ধে আন্তর্জাতিক সামরিক জোট গঠন এবং এ ব্যাপারে ইরাককে সহযোগিতার সিদ্ধান্তকে সঠিক অভিহিত করে বলেছেন, তবে জোটের কর্মকাণ্ডের সঙ্গে বাস্তবতার মিল নেই। ইরাকের পররাষ্ট্রমন্ত্রী বিভিন্ন দেশে তার দেশের সেনাবাহিনীকে প্রশিক্ষণ দেয়ার ব্যাপারে বলেছেন, এ ধরণের পদক্ষেপ সত্ত্বেও সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে যুদ্ধের নামে বিদেশি বাহিনীকে ইরাকে মোতায়েনের সুযোগ দেয়া হবে না।

 

ইরাকের সেনাবাহিনী গত বছরের জুন থেকে আইএসআইএল সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করছে। নিষিদ্ধ ঘোষিত বাথিস্ট ও আইএসআইএল সন্ত্রাসীরা গত বছরের জুনে নেইনাভা প্রদেশের কেন্দ্রীয় মসুল দখল করার পর ইরাকের সেনা ও গণবাহিনী আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে যুদ্ধে অগ্রণী ভূমিকা পালন করে আসছে।

 

২০০৩ সালে ইরাক দখলের পর পাশ্চাত্য বিশেষ করে আমেরিকার ভুল নীতির কারণে উগ্র তাকফিরি সন্ত্রাসী গোষ্ঠী আইএসআইএলের উদ্ভব ঘটে এবং এমন কোনো অপরাধযজ্ঞ নেই যা তারা করেনি এবং  এ অঞ্চলের এমন কোনো সীমান্ত নেই যেখানে তারা হামলা করেনি। ইরাক ও সিরিয়ায় আইএসআইএল সন্ত্রাসীরা যেসব মানবতা বিরোধী কর্মকাণ্ড চালাচ্ছে তাদের বেশিরভাগই এসেছে ইউরোপ থেকে। পুড়িয়ে, গুলি করে কিংবা অন্যান্য নৃশংস পন্থায় সন্ত্রাসীরা ইরাক ও সিরিয়ায় গণহত্যা চালাচ্ছে।

 

বিশ্লেষকরা বলছেন, সিরিয়া ও ইরাকে তৎপর উগ্র তাকফিরি সন্ত্রাসী গোষ্ঠী আইএসআইএল বর্তমানে সারা বিশ্বের জন্য বিপদ হয়ে দাঁড়িয়েছে। এসব সন্ত্রাসীদের মোকাবেলায় যে কোনো অবহেলা সব দেশের সীমান্তকেই অনিরাপদ করে তুলবে। আইএসআইএল সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে ইরাক ও সিরিয়ার জনগণের প্রতিরোধ সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে যুদ্ধের প্রকৃত দৃষ্টান্ত। ইরাক ও সিরিয়ার সেনাবাহিনীর ক্ষমতা সীমিত হলেও তারা বিদেশি মদদপুষ্ট অশুভ শক্তির বিরুদ্ধে প্রবল প্রতিরোধ গড়ে তুলেছে। এ অবস্থায় সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে যুদ্ধে সাফল্যের জন্য প্রয়োজন ঐক্যবদ্ধ অবস্থান ও জনগণের সমর্থন।

 

আইএসআইএল সন্ত্রাসীদের ব্যাবহার করে কয়েকটি দেশ এ অঞ্চলে তাদের স্বার্থ হাসিলের চেষ্টা করছে আর এ কারণেই এ সন্ত্রাসীরা এখনো টিকে আছে। তুরস্ক উত্তর ইরাকের আইএসআইএল সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে যুদ্ধের কথা বললেও এ দেশটিই আহত সন্ত্রাসীদের চিকিৎসা দিচ্ছে। একইসঙ্গে তুরস্ক বিভিন্ন দেশ থেকে সন্ত্রাসীদের এনে ইরাক ও সিরিয়ায় পাঠাচ্ছে যুদ্ধের জন্য।

 

আইএসআইএল সন্ত্রাসীদের ব্যাপারে তুরস্কের যে মনোভাব তাতে এ সন্ত্রাসীদের বিনাশ করা সম্ভব নয়। এ অবস্থায় সন্ত্রাসীদের মূলোৎপাটনের একমাত্র উপায় হচ্ছে সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে যুদ্ধে অগ্রণী ভূমিকা পালনকারী ইরাক ও সিরিয়ার সরকারের মধ্যে ঐক্যবদ্ধ অবস্থান ও সহযোগিতা।#

 

রেডিও তেহরান/আরএইচ/১০

 

 

 

 

sharethis সন্ত্রাস বিরোধী আন্তর্জাতিক সামরিক জোটের কথা ও কাজে মিল নেই: ইরাক

ارسال یک پاسخ

ایمیل شما منتشر نمی شود.
আবশ্যকীয় বিষয়গুলো * চিহৃ দ্বারা নির্দিষ্ট করা হয়েছ।.

*


هفت − 1 =

আমাদেরসাথেযোগাযোগ| RSS | সাইটেরভূমিকা

এইসাইটেরসর্বস্বত্ব ‘ইসলাম১৪’ এরজন্যসংরক্ষিত; তবেরিফারেন্সসহকোনকিছুবর্ণনাকরতেপারেন।